মানব সেবাই পরম সত্য সেবা, জগতের যা কিছু কল্যাণকর তার অধিকাংশ ক্ষেত্রেই জীবের সেবার মধ্যে রয়েছে। তেমনি একজন বোন বা মায়ের জাতি কোহিনূর বেগমের জীবন সংগ্রামের কথা। নবীনগর উপজেলার রতনপুর ইউনিয়নের রতনপুর গ্রামের লৌহ মানব কুহিনুর বেগমের অসহায়ত্ব জীবন যাপন নিয়ে “নবীনগরে রডের বোঝা শরিরে নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন রতনপুরের কুহিনুর”এই শিরোনামে সংবাদ প্রচারের পর থেকে শুরু হয় তুলকালাম কান্ড বদলে যেতে শরু হলো কুহিনুরের জীবনে বেচে থাকার জয়গান। এবং নিউজ প্রচার এর প্রবাসী ভাই আলাউদ্দিন এগিয়ে আসলেন কুহিনুরের পাশে। আর্থিক অনুদান হিসেবে ৮০,০০০(আশি) হাজার টাকা তুলে দিলেন আমাদের মাধ্যমে তার হাতে।

এছাড়াও তার মোবাইলে বিকাশে অনেক টাকা এসেছে। নবীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুমের দৃষ্টিগোচর হওয়ার পর শুরু হয় কুহিনুর এর চিকিৎসা।

সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীব মানুষ কিন্তু কীভাবে- তা অবশ্যই ভেবে দেখা দরকার। এমনি এমনি শ্রেষ্ঠ হওয়া যায় না কখনো, শ্রেষ্ঠত্বের দাবি করতে হলে তার জন্য মানুষের শ্রেষ্ঠত্বের গুণের অধিকারী হতে হয়। এই পৃথিবীতে মানুষের পরিচয় কিসে? মানুষের পরিচয় তার মানবিকমূল্যবোধ অর্থাৎ মনুষ্যত্বে। আর এই মনুষ্যত্বের মধ্য থেকেই মানবতাবাদ সৃষ্টি হয়েছে। সত্যি যে, মানুষকে ঘিরেই মনুষ্যত্ব কিংবা মানবতাবাদ আলোকিত হয় ঠিক তেমনি ভাবে আজকে কোহিনুরের চিকিৎসার ব্যবস্থা করে দিয়ে মনুষ্যত্ববোধকেই জাগ্রত করেছেন উপজেলার নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুম। মানবতাকে সকল জ্ঞানের ঊর্ধ্বে স্থান দিয়েছেন। সমাজের এমন অসহায় মানুষের কষ্ট লাঘবে তাদের পাশে নিজে গিয়ে দাঁড়িয়েছেন ।

এখন কুহিনুর স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছে। তবে আনন্দের ব্যাপার হলো কিছু প্রবাসী ভাই সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে যেন অসহায় ঐ কুহিনুর জীবন যাপন করতে পারেন সেজন্য মোটা অংকের একটি টাকা রবিবার তার হাতে পৌঁছে দেন।

“রডের বোঝা শরীরে নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন কোহিনুর”,এই শিরোনামে স্হানীয় সাংবাদিক ভাইয়েরা সংবাদটি প্রচারের পর কোহিনুরের সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণ ভাইরাল হয়। এরপর থেকেই কোহিনুরের জন্য বিভিন্ন জায়গা থেকে অনুদান এসেছে।

আজকে যে কাজটি করে দিলেন সে উদ্যোগটি আসলেই কোহিনূরের জীবন কে পাল্টে দেবে বলে আশা করছি। আগামী দিনগুলোতে যেন এভাবেই অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারেন সে প্রত্যাশা করেন বাহরাইনে স্থাপিত- “Orissa Building Contracting & Services Co S.P.C ” বাংলদেশী মালিকানায় পরিচালিত প্রতিষ্ঠান অনুদান প্রদানের পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে। অনুদানের পরিমান- ৮০,০০০/- (আশি হাজার টাকা)। উক্ত প্রতিষ্ঠানের আলাউদ্দিন আহমেদ (চেয়ারম্যান) পিতা মোঃ জালাল মিয়ার হাতে (১৫/৯) রবিবার কূহিনুরের হাতে সেই অনুদানের টাকা নগদ তুলে দেন।

সার্বিক তত্বাবধানে ভূমিকা পালন করেন উক্ত প্রতিষ্ঠানের আলাউদ্দিন আহমেদ (চেয়ারম্যান), কামাল আহমেদ (ব্যবস্থাপনা পরিচালক), মুহাম্মদ আল আমিন (ব্যবস্থাপক, হিসাব বিভাগ), নূরুল আমিন রুহুল (ব্যবস্থাপক, শ্রম বিভাগ) ইফরান রেজা সজল (সময় নিয়ন্ত্রক) সহ কোম্পানির ফোরম্যান ও অন্যান্যরা সহযোগিতা করেন।

এছাড়াও উপস্হিত ছিলেন সাংবাদিক পিয়াল হাসান রিয়াজ, আবু সুফী ফতেহ আলী, মাছুম মির্জা, মোঃ নাছির, মোঃ আবু শহীদ খান, সোহেল জাহান, ডাঃ রাসেল, আমির হামজা, মাঈনউদ্দিন লিটন,সুমন মিয়া,শাহীন, সৈয়দ আবরু প্রমুখ।

By khobor

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *