ব্রাহ্মণবাড়িয়া.প্রেস:- ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগর উপজেলার হরষপুর ইউনিয়নের হুগলি বিলে প্রশাসনের অনুমোদিহীন নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে আশেপাশের কয়েক ইউনিয়ন থেকে লক্ষাধিক দর্শকের উপস্থিতি হয়েছে বলে একাধিক বিশ্বস্ত সূত্র নির্শ্চিত করেছে।
হরষপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি, বুল্লা গ্রামের মোঃ কাউছার মেম্বার ও হরষপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি এক্তারপুর গ্রামের মোঃ শাহ আলম মাস্টারের নৌকার প্রতিযোগিতার মাধ্যমে এই নৌকাবাইচ অনুষ্ঠিত হয়।
গতকাল (২৯সেপ্টেম্বর) মঙ্গলবার বিকাল ৪ ঘটিকায় বুল্লা গ্রামের হুগলি বিলে এই নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। উক্ত নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতায় হরষপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি, বুল্লা গ্রামের মোঃ কাউছার মেম্বারের নৌকাকে পরাজিত করে ও হরষপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি এক্তারপুর গ্রামের মোঃ শাহ আলম মাস্টারের নৌকা বিজয় লাভ করেন। এছাড়াও বুল্লার বাসু মিয়ার নৌকাটি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ না করে শুধু দর্শকদের সামনে অনুশীলন করেছে।নৌকাবাইচ এর আয়োজক মোঃ কাউছার মেম্বারের অর্থায়নে বিজয়ী দলকে পুরস্কার হিসেবে একটি খাসি উপহার দেওয়া হয়।
উল্লেখ্য, বিশ্বব্যাপী করোনার মহামারী দুর্যোগকালীন সময়ে যখন সরকারসহ বিভিন্ন জায়গার সকলে গণজমায়েত এড়িয়ে চলার নির্দেশনা প্রদান করে, মাস্ক ব্যবহারের জন্য শতভাগ নিশ্চিত করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন সরকার। বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী বুড়িগঙ্গা নদীতে, তিতাস নদীতে, মেঘনা নদীতে সহ বিভিন্ন জায়গাযর নৌকাবাইচ স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। তখন’ই দায়িত্বহীন ভাবে কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে বিজয়নগর উপজেলার হরষপুর ইউনিয়নের হুগলি বিলে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে।
আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ও আতঙ্কিত বিষয় কারণ হচ্ছে, হরষপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি, বুল্লা গ্রামের মোঃ কাউছার মেম্বারের নেতৃত্বে বুল্লা ও পাইকপাড়া গ্রামের আবুল কাশেম মেম্বারের নেতৃত্বে পাইকপাড়ার মধ্যে গত দুই বছর যাবত এই হুগলি বিলের আধিপত্য বিস্তার ও নিয়ন্ত্রণ নিয়ে রক্ত ক্ষয়ী সংঘর্ষ, বাড়িঘর ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, একাধিক আহত সহ একাধিক মামলা,হামলা ঘটনা ঘটে আসছে।
এছাড়াও বর্ষার শেষে বিলের বাঁধ ও নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আবারো সমস্যা সৃষ্টির সম্ভাবনা থাকলেও কাউসার মেম্বারের আয়োজনে ও নেতৃত্বের হুগলি বিলে এই প্রথম নৌকাবাইচ আয়োজনের মাধ্যমে পাইকপাড়ার সমর্থকদেরকে “কাটা গায়ে নুনের ছিটা” দেওয়ার মতোই বিষয়টি দেখছেন পাইকপাড়া সমর্থকরা।

উক্ত নৌকাবাইচ কে কেন্দ্র করে উপজেলাে হরষপুর ইউনিয়ন, পাহাড়পুর ইউনিয়ন, বুধন্তী ইউনিয়ন, চান্দুরা ইউনিয়ন, ইছাপুরা ইউনিয়নসহ পার্শ্ববর্তী মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়ন, বহরা ইউনিয়ন, চৌমুহনী ইউনিয়নের লক্ষাধিক লোকের সমাগম ঘটেছে। তাদের মুখে নেই কোন মাস্ক নেই কোন সামাজিক দূরত্ব বজায়ের চিন্তা।
বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, আগামী শনিবার হুগলি বিলে এক্তারপুর ও বুল্লার মধ্যে আবারো নৌকাবাইচ অনুষ্ঠিত হবে।

By khobor

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *